রাজনীতি

'ঘুমিয়ে আছে শাশুড়ি মাতা সব মেয়েরই অন্তরে'

image
Wed, October 19
11:13 2016

আবুবকর সিদ্দীক:


ණ☛ মেয়েরা নাকি শাশুর শাশুড়িকে পিতা মাতার আসনে আসীন করতে পারে না? তবে শাশুর শাশুড়ি কি ছেলের বউকে মেয়ের আসনে আসীন করতে পারে? কঠিন সমীকরণ, আমাদের সমাজ কি বলে? আমাদের সমাজের বাস্তবতা হল বউ শাশুড়ি মানেই একে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী, যেমন- ক্রিকেট ম্যাচে পাকিস্তান বনাম ভারত, অথবা ফুটবল ম্যাচে আর্জেন্টিনা বনাম ব্রাজিল। কেউ যেন কাউকে ছেড়ে কথা বলবে না, শাশুড়ি মনে করে বউ হচ্ছে ঘরের কাজের মেয়ের মত, আবার বউ মনে করে এটা আমার স্বামীর সংসার, অবশ্যই এখানে কর্তিত্ব করার অধিকার আমার আছে।


ණ☛ সংসারের শুরুটা যদি ও ভালো ভাবে শুরু হয়, শাশুড়ি মনে করে ছেলের বউ আমার মেয়ের মত আবার ছেলের বউ মনে করে শাশুড়ি আমার মায়ের মত। এই কথাটা শুধু মনে করার ভিতরেই বন্ধী থাকে, বাস্তবতা মোড় নেয় ভিন্ন দিকে। যখন খুনসুটি শুরু হয় তখন শাশুড়ি বলে আমার মেয়ে হলে এমন কথা বলতে না, আবার বউ বলে আমার মা হলে এমন কথা বলতে পারতে না। এই খুনসুটির চাপায় পিষ্ট হয় ছেলে এবং সংসার ও ছেলের ভবিষ্যৎ, সারাদিন কর্ম শেষে ছেলে যখন বাড়ি ফিরে তখন শুরু হয় মায়ের নালিশ বউয়ের বিরুদ্ধে, আবার রাতে শুরু হয় বউয়ের ঘ্যানর ঘ্যানর।


ණ☛ তখনই শুরু হয় সংসারে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, অশান্তির লেলিহান শিখা দাবানলে পরিণত হয়। অনেক ক্ষেত্রে বউ বাধ্য হয়ে সংসারের কাজ কর্ম করে, আবার অনেক ক্ষেত্রে বউ বাধ্য হয়ে সংসার ছাড়তে বাধ্য হয়।


ණ☛ যখন বউ বাধ্য হয়ে শাশুর শাশুড়ি থেকে পৃথক থাকার চিন্তা করে এবং সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয়, তখনি শুরু হয় বউয়ের বিরুধে অপপ্রচার। বলা হয় এই বউ সংসারটাকে জাহান্নামে পরিণত করেছে, কখনও বলা হয় না শাশুর শাশুড়ির অতিষ্টতার কারণে বউ বাধ্য হয়ে সংসার ছাড়তে হয়েছে। সমাজের কিছু লোক ছেলেটার দিকে আঙ্গুল তুলে বলে ছেলেটা বউ পাগলা হয়ে গেছে, তাই মা বাবাকে ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছে। কিন্তু ছেলেটা যে কঠিন সমীকরণের মুখোমুখি তা সমাজের কেউ বুজতে রাজি হয় না।


ණ☛ এবার একটু ফ্ল্যাশব্যাকের দিকে ফিরে তাকাই। ছেলেটির জন্মের পর থেকেই দেখেছে তার দাদা দাদির কাছ থেকে তার মা বাবার সংসার আলাদা, তার মানে আজকের যিনি শাশুড়ি যখন ঘরের বউ ছিলেন তখন তাহার শাশুর শাশুড়ির সাথে খুব বেশি দিন এক সংসারে থাকতে পারেন নাই। শাশুর শাশুড়ির সাথে খুনসুটির এক পর্যায়ে স্বামীকে নিয়ে পৃথক সংসারে পাড়ি দেন। সেই তিনিই আজ শাশুড়ি হয়েছেন কিন্তু শাশুড়ি নামক চরিত্রের পরিবর্তন করতে পারেন নাই। উনার শাশুড়ি যেমন উনাকে মেয়ের মত মেনে নিতে পারেন নাই,তাই উনি ও উনার ছেলের বউকে মন থেকে মেয়ের মত মেনে নিতে পারেন নাই। সংসারের জট এখান থেকেই শুরু, এবং এর শেষটা হয় ভয়ঙ্কর পরিণতি দিয়ে।


ණ☛ সুতরাং এই সংস্কৃতি আমাদেরকে পরিবর্তন করতে হবে সংস্কৃতি পরিবর্তন হলে আমাদের সমাজ থেকে হিংসা বিদ্বেষ অনেক কমে যাবে। একান্নবতি সংসার ভালো যদি পরিবারের সকলের মনে আন্তরিকতা থাকে, তার চেয়ে পৃথক সংসার অনেক ভালো যদি হিংসা বিদ্বেষ না থাকে। বহিঃবিশ্বে সংসারে জটিলতা খুব কম কারন একান্নবতি পরিবার কম তাই। কারন তারা বিয়ের পর পরই পৃথক সংসারে চলে যায়, সেই কারণে মা বাবার প্রতি সম্মান এবং ভালবাসা থাকে যথেষ্ট। সুতরাং একান্নবতি পরিবারে সুখে থাকার অভিনয় করার চেয়ে সম্মান বজায় রেখে বিয়ের পর পর পৃথক থাকা আমার দৃষ্টিকোণ থেকে মনে হয় উত্তম।


ණ☛ তবে হ্যাঁ মা বাবার প্রতি অনীহা অবহেলা করা যাবে না, তাদের প্রতি যে দায়িত্ব আছে তা অবশ্যই সন্তানকে পালন করতে হবে। আপনার মা বাবাকে খেদমত করা আপনার দায়িত্ব আপনার বউয়ের নয়। আপনার ভাই বোনকে খোশামোদ করা আপনার দায়িত্ব আপনার বউয়ের নয়। অতএব বউ মা বাবা ভাই বোনকে সন্তুষ্ট রাখার একমাত্র উপায় হল, বিয়ের পরেই আলাদা সংসারে বসবাস করা।


অবশ্য আমার কথাতে অবিবাহিতরা ক্ষিপ্ত হবেন, তবে বিবাহিতরা একমত পোষণ করবেন। কারন বাস্তবতার দুয়ারে মুখোমুখি বিবাহিতরা।


লেখক: ব্লগার ও কলামিস্ট।

লেখাটি ৬৬০ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৪৮৭৩৮৫৪

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৭৯ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা