অর্থ বাণিজ্য

ঈদ ও পূজায় বেতনের সমান উৎসব বোনাসের দাবি মৌলভীবাজারে হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের বিক্ষোভ মিছিল

image
Mon, August 21
03:07 2017

নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম:

ණ☛ আসন্ন ঈদুল আজহা ও দুর্গা পূজায় মাসিক বেতনের সমপরিমান উৎসব বোনাস প্রদান, ৮ ঘন্টা কর্মদিবস, নিযোগপত্র, পরিচয়পত্র, সার্ভিসবুক প্রদানসহ শ্রম আইন বাস্তবায়ন এবং হোটেল সেক্টরে সরকার ঘোষিত নি¤œতম মজুরি কার্যকর করার দাবিতে বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট সুইটমিট শ্রমিক ফেডারেশন রেজিঃ নং বি-২০৩৭ ডাকে দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি পালিত হয়। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ১৯ আগষ্ট সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ২৩০৫ এর উদ্যোগে শহরের চৌমুহনাস্থ কার্যালয় হতে এক বিক্ষোভ মিছিল বের হয়।

ණ☛বিক্ষোভ মিছিলটি কোর্টরোড, চৌমুহনা, সেন্ট্রাল রোড, কুসুমবাগ এলাকা প্রদক্ষিণ করে এস আর প্লাজার সামনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে অথিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সভাপতি শহীদ সাগ্নিক, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস। সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহিন মিয়া, কুলাউড়া উপজেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সাধারণ সম্পাদক আশিক খান ও মৌলভীবাজার জেরা রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ ২৪৫৩ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ দুলাল মিয়া।

ණ☛সভায় বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন শ্রমিকদের কষ্টার্জিত সৃস্ট মুনাফায় মালিকরা মহাধুমধামে ঈদ-পূজার উৎসব পালন করলেও শ্রমিকদের আইনগত ও ন্যায্য উৎসব বোনাস অধিকাংশ হোটেল মালিক প্রদান করেন না। অধিকাংশ হোটেল শ্রমিকদের ঈদ ও পুজায় কোন ছুটিও প্রদান করা হয় না। আর যে সকল শ্রমিকদের ছুটি দেওয়া হয় তাদের ছুটির দিনের বেতনও দেওয়া হয় না। সরকারি আইন, মালিকদের চুক্তি কোন কিছুরই তোয়াক্কা করেন না মালিকপক্ষ। শুধু আইনগতভাবে নয় ধর্মীয় মূল্যবোধ ও মানবাধিকারের দিক থেকেও হোটেল শ্রমিকদের উৎসব বোনাস ন্যায্য অধিকার। শ্রম আইনে স্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাজ ও বাসস্থানের বিধান থাকলেও হোটেল শ্রমিকদের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে কাজ করতে ও থাকতে বাধ্য করা হয়। ইতোমধ্যে হোটেল শ্রমিকদের আসন্ন ঈদুল আজহা ও শারদীয় দুর্গা পুজায় মাসিক বেতনের সমপরিমান উৎসব বোনাসসহ মালিক সমিতির সাথে সম্পাদিত চুক্তি বাস্তবায়নের প্রেক্ষিতে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক, হোটেল মালিক সমিতিসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে স্মাকরলিপি প্রদান করে শ্রমিকদের দাবি জানানো হয়েছে।

ණ☛ বক্তারা আরও বলেন শ্রমিকদের হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমে বিকশিত হোটেল সেক্টর আজ একটি শিল্পে পরিণত হতে চলছে। মৌলভীবাজার জেলায় একের পর এক অত্যাধিনিক হোটেল-মোটেল গড়ে উঠছে, যার কারণে মৌলভীবাজার আজ প্রতিষ্টিত পর্যটন জেলা। স্বাভাবিক কারণেই মালিকদের মুনাফার পাশাপাশি এখাত থেকে সরকারের রাজস্ব আয়ও অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু এই শিল্পের বিকাশের নেপথ্যের মূল কারিগর হোটেল শ্রমিকদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন ঘটেনি। শ্রমিকরা যেমন আইনগত অধিকার ও ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত, তেমনি নেই শ্রমিকদের চাকরির নিশ্চয়তা। এমতবস্থায় শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলা ছাড়া বিকল্প কোন পথ নেই।

ණ☛ সমাবেশ থেকে আসন্ন ঈদুল আজহা ও দুর্গা পূজায় মাসিক বেতনের সমপরিমান উৎসব বোনাস প্রদান, বন্যা কবলিত হাওর এলাকাকে দূর্গত এলাকা ঘোষণা ও পর্যাপ্ত ত্রাণ প্রদান, বাজারদরের সাথে সংগতিপূর্ণ নি¤œতম মূল মজুরি ১০ হাজার টাকা ঘোষণা, ৮ ঘন্টা কর্মদিবস, নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্রসহ শ্রমআইন বাস্তবায়ন, ঢাকার ঘরোয়া হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টে কিশোর শ্রমিক রিয়াদের খুনির দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তি প্রদান, শ্রমিকদের জন্য রেশনিং চালু, শ্রীমঙ্গলে স্থায়ী শ্রম আদালত ও যুগ্ম-শ্রম পরিচালকের কার্যালয় স্থাপন করার দাবি জানানো হয়। সমাবেশ থেকে একই দাবিতে আগামীতে ২২ আগষ্ট কুলাউড়ায় মিছিল সমাবেশ সফল করার আহবান জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তি

লেখাটি ১৩৬ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৬৪১৬২৫৮৯

অনলাইন ভোট

image
রোডম্যাপহীন নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে দেশ- মাহমুদুর রহমান মান্নার এ বক্তব্য যথার্থ বলে মনে করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ১৫০ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা