বিনোদন

জীবনী নিয়ে বই

image
Thu, September 7
03:09 2017

নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম:

ණ☛ বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাক গত ২১শে আগস্ট চলে যান না ফেরার দেশে। জনপ্রিয় এই অভিনয়শিল্পীর বর্ণাঢ্য জীবনকাহিনী নিয়ে এবার চিত্রনাট্যকার ও গুণী পরিচালক ছট্‌কু আহমেদ একটি বই লিখছেন। আসছে নতুন বছরের একুশে গ্রন্থমেলায় এটি প্রকাশ হবে বলে জানালেন এই লেখক। বইটি প্রসঙ্গে ছট্‌কু আহমেদ বলেন, নায়করাজের জীবনী নিয়ে বইটির নামকরণ করা হয়েছে-‘নায়করাজ রাজ্জাক : টালিগঞ্জ থেকে ঢালিউড’। বিডি পাবলিকেশন বইটি আগামী একুশে গ্রন্থমেলায় আনবে।

ණ☛ এর আগে আগামীকাল বিকালে মহাখালীতে প্রকাশনীর অফিসে একটি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে রাজ্জাক সাহেবের পুত্র বাপ্পারাজ ও সম্রাট উপস্থিত থাকবেন। মূলত সেখানে এ বইটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হবে। বইটিতে রাজ্জাক সাহেবের শৈশব, উত্থান, ক্যারিয়ার, জীবনের বাঁকবদল, সে সময়ের রাজনৈতিক অবস্থায় তার অবস্থানসহ নানা বিষয় নিয়ে লেখা হচ্ছে। আমার বিশ্বাস, নতুন প্রজন্মের জন্য রাজ্জাক সাহেবের জীবনীবিষয়ক এই বইটি পাথেয় হয়ে থাকবে। সেই ভাবনা থেকেই বইটি লেখার চেষ্টা করেছি। তিনি আরও বলেন, রাজ্জাক সাহেব বেঁচে থাকতেই এর কাজ শুরু করেছিলাম।

ණ☛ এরই মধ্যে চল্লিশ শতাংশ লেখা শেষ হয়েছে। রাজ্জাক সাহেবের সঙ্গে আমার পারিবারিক সম্পর্ক ছিল। চলচ্চিত্রে এমন শক্তিশালী অভিনেতা হয়তো আমরা আর পাবো না। উল্লেখ্য, ছট্‌কু আহমেদ পরিচালিত প্রথম ছবি ‘নাতবউ’-তে অভিনয় করেছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক। সুপারহিট ওই ছবিতে আরো ছিলেন ববিতা, নূতন, হাসান ইমাম, প্রবীর মিত্র প্রমুখ।

লেখাটি ৬৪ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৫৪১১৪৮৬৪



অনলাইন ভোট

image
জনগণের নয়, বিচারকদের প্রজাতন্ত্রে বাস করছি, সাবেক প্রধান বিচারপতি খায়রুল হকের এ বক্তব্যের সাথে আপনি কি একমত?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৪৮৪ জন

আজকের উক্তি

আট বছরে আট মিনিটের জন্যও রাজপথে উত্তাপ না ছড়ানোর ব্যর্থতায় বিএনপির টপ-টু-বটম নেতাদের পদত্যাগ করা উচিত: ওবায়দুল কাদের