শিল্প ও সাহিত্য

সংস্কারের অভাবে শেষ পরিণতির পথে নওগাঁর দুবলহাটি রাজবাড়ি

image
Wed, September 27
05:33 2017

মোঃ খালেদ বিন ফিরোজ, নওগাঁ প্রতিনিধি:

ණ☛ নওগাঁ জেলা শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নওগাঁর ঐতিহ্যবাহী দুবলহাটি রাজবাড়ি।প্রায় ২শ’ বছরের প্রাচীন এই রাজবাড়িটি নওগাঁবাসীর কাছে আকর্ষণের কেন্দ্র।মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্ব ও যথাযথ সংস্কারের অভাবে শেষ পরিণতির পথে এগোচ্ছে দুবলহাটি রাজবাড়িটি।ইতোমধ্যে দুর্বৃত্তরা প্রাসাদের লোহার রড, ইট, দরজা জানালা, কড়ি-বর্গা ইত্যাদি খুলে নিয়ে গেছে।স্থানীয়দের অভিযোগ,বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সময় পত্র-পত্রিকায় বহু সংবাদ প্রকাশও হয়েছে।তবুও প্রশাসন কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণে বিলুপ্তির পথে হাঁটছে ঐতিহাসিক এই স্থাপনাটি।ইতিহাস থেকে জানা যায়, ৫ একর এলাকা জুড়ে বিশাল প্রাসাদ।আর প্রাসাদের বাইরে ছিল দীঘি,মন্দির,স্কুল,দাতব্য চিকিৎসালয়,১৬ চাকার রথসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

ණ☛রাজপ্রাসাদের সামনে রোমান স্টাইলের বড় বড় পিলারগুলো রাজাদের রুচির পরিচয় বহন করে।১৮৬৪ সালে রাজ পরিবারের উদ্যোগে একটি স্কুল স্থাপন করা হয়।পরবর্তীতে স্কুলটি নামকরণ করা হয় রাজা হরনাথ উচ্চ বিদ্যালয়।প্রধান শিক্ষক ছিলেন একজন ইংরেজ।রাজা হরনাথ রায় চৌধুরীর জনহিতকর ও সামাজিক কাজের অবদান আছে অনেক।স্টেটের খরচে গরিব ও মেধাবী ছাত্রদের লেখাপড়ার ব্যবস্থাও ছিল।এছাড়া, দুবলহাটি রাজ প্রাসাদে সাড়ে ৩শ’ ঘর ছিল।ছিল ৭টি আঙ্গিনা।রাজবাড়িটির ভিতরে কোনোটি ৩ তলা আবার কোনোটি ৪ তলা ভবনও ছিল।দুবলহাটি ইউনিয়নের দুইজন বাসিন্দা মো: লিয়াকত আলী (৫৫) ও শাহাজান আলীর (৫১ ) সঙ্গে এ প্রতিবেদকের কথা হলে তারা জানান, আজ থেকে ৩০ বছর আগেও এ রাজবাড়িটি চোখে পড়ার মত ছিল; দূরদূরান্তে থেকে মানুষ দেখতে আসতো কিন্তু আজ আর দেখার মত কিছুই নাই।

ණ☛রাজবাড়িটি রক্ষায় উচিত ছিল উত্তরসূরিদের এবং কর্তৃপক্ষের সঠিক পদক্ষেপ নেওয়ার।রাজা কৃঙ্করীনাথ রায় চৌধুরীর নাতি ও কুমার অমরেন্দ্র নাথ রায় চৌধুরীর ছেলে রাজ পরিবারের ৫৪তম পুরুষ রবীন্দ্রনাথ রায় চৌধুরী (৭২) জানান, হরনাথ রায় চৌধুরী প্রথম রাজা খেতাব পেয়েছিলেন।১টি গোল্ডেন সিলভার ও ১টি আইভরির তৈরি সিংহাসনও ছিল।কিন্তু পরবর্তীতে ব্রিটিশরা সিংহাসন দুটি নিয়ে যায়।রাজা কৃঙ্করীনাথ রায় চৌধুরীর পিতা রাজা হরনাথ রায় চৌধুরী অবকাশ যাপনের জন্য ‘রনবাগ’ নামে একটি বাগানবাড়ি তৈরি করেছিলেন।প্রাসাদের ভিতরে ও বাইরে ছিল নাটক এবং যাত্রামঞ্চ।নিয়মিত নাটক, গান ও যাত্রাপালা অনুষ্ঠিত হতো। দুবলহাটির জমিদারি এলাকা ছিল, বগুড়া সিলেট, দিনাজপুর,পাবনা, রংপুর ও ভারতের কিছু অংশে।

ණ☛দুবলহাটি রাজবাড়িটির সংস্কার ও এটি রক্ষার বিষয়টি নিয়ে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মুশতানজিদা পারভীন জানান, দুবলহাটি রাজবাড়িটির মালিকানা নিয়ে আদালতে মামলা আছে বলে শুনেছি,মামলা নম্বর জানা নেই, মামলাটি নিষ্পত্তি না হলে রাজবাড়িটি যথাযথ সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া সম্ভবনয়।এদিকে, দুবলহাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান আজম বলেন, দুবলহাটি রাজবাড়িটি আমাদের অহংকার কিন্তু সংস্কারের অভাবে ঐতিহ্যবাহী দুবলহাটি রাজবাড়ি আজ ধ্বংসের পথে।এটির সংস্কার ও রক্ষায় আমরা অনেকবার ঊর্ধ্বতন মহলে জানিয়েছি কিন্তু আজ পর্যন্ত রাজবাড়িটি রক্ষায় কোনো উদ্যোগ নেয়া হয় নি।

লেখাটি ৩৭৯ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৯৯০৩১১৯

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ১২৫ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা
Changer.com - Instant Exchanger