রাজনীতি

মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে আগে ঘুষ, পরে চিকিৎসা!

image
Sun, November 5
02:53 2017

ক্রাইম রিপোর্টার:

ණ☛ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল। সারা জেলার সাধারণ মানুষের উন্নত চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার একমাত্র ভরসাস্হল। এখানে প্রতিদিন শত শত রোগী জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসেন একটু ভাল চিকিৎসা সেবা গ্রহণের জন্য।

ණ☛ এই হাসপাতালে রয়েছে উন্নত চিকিৎসা প্রধানের জন্য সব ধরণের এক্সরে, ই.সি.জি. প্যাথলজি, উন্নতমানের অপারেশন থিয়েটার সহ আনুষাঙ্গীক সকল সুযোগ সুবিধা। রয়েছেন সকল রোগের উপর ডিগ্রী প্রাপ্ত বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। কোনকিছুর অভাব নেই অভাব শুধু মানবিকতার।

ණ☛ প্রতি বছর এই হাসপাতালে কোটি কোটি টাকার টেন্ডার হয় ঔষধ সরবরাহের জন্য অতছ সকল ধরণের রোগিকেই প্রয়োজনীয় ঔষধ কিনতে হয় বাহিরের ফার্মেসী থেকে।রোগীদের অভিযোগ সরকার গরিবের চিকিৎসার জন্য যদি এত টাকার ঔষধ সরবরাহ করে থাকে তাহলে ঐ সব ঔষধ আমাদেরকেও দেওয়া হয়না তাহলে এ গুলো যায় কোথায়?এইসব দেখার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কি কেউ নেই?

ණ☛ অনেক সময় দেখা যায় রোগী চটপট করে জরুরি বিভাগে আর জরুরি বিভাগের ডাক্তার টিভি দেখেন রোগীকে দাঁড় করিয়ে প্রতিবাদ করলে দেন দমক। এই সদর হাসপাতালের অনিয়ম দূর্ণীতি নিয়ে সামাজিক সংগঠন দূর্ণীতি মুক্ত করণ যুব ফোরাম সহ বিভিন্ন সংগঠন অনেক সভা সমাবেশ,জেলা প্রশাসক বরাবরা স্মারক লিপি ,মানব বন্দন সহ অনেক প্রতিবাদী আন্দোলন করেছে তবুও দমানো যাচ্ছেনা তাদের এই কার্যকলাপ। টনক নড়ছে না কর্তাব্যক্তিদের।

ණ☛ আজ রাত প্রায় ৮ ঘটিকায় মৌলভীবাজার সদর উপজেলার জগতসি গ্রামের এক মহিলা (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন উনার বাবাকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন একটি ইন্জেক্সন দিতে কিন্তু কমপাউন্ডার তার কাছে দুই শত(২০০) টাকা দাবী করে। উনি বলেন, আমি উনাকে বলি আমি গরিব মানুষ টাকা নাই এ জন্য হাডপাতালে আসছি কিন্তু উনি ( কম্পাউন্ডার) আমার কথা রাখেন নি পড়ে আমি ১০০ টাকা দেওয়ার পর উনি কাজ করেন।

ණ☛ প্রাথমিক অবস্হায় উনার (কম্পাউন্ডার) নাম পাওয়া যায়নি তবে উক্ত সময়ে কে চিল দায়িত্বে খোজ করলে পাওয়া যাবে। এ বিষয়ে জানতে চেয়ে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ পলাশ রায় এর সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তাকে পাওয়া যায় নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ডায়ালাইসিস রুগীর কাছ থেকে জানা যায় কর্তৃপক্ষ ডায়ালাইসিস পেকেজের কথা বলে রসিদ এর মাধ্যমে ২০০০০ হাজার টাকা নিলেও প্রতিটি ডায়ালাইসিস করাতে এক্সট্রা ৪০০ টাকা দিতে হয় এবং সকল ঔষধ এমন কি টেপ পর্যন্ত কিনে আনতে হয় বাহির থেকে।

এ বিষয়ে আমাদের নিউজ অর্গান প্রতিনিধি সদর হাসপাতালের সুমন এর সাথে কথা বললে তিনি তা স্বীকার করে বলেন আপনি উর্দতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলুন।

(আসছে ২য় পর্ব)

লেখাটি ৪৬১ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৭৯৬৫২১৯

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ১০৬ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা
Changer.com - Instant Exchanger