রাজনীতি

কিশোর অপরাধ কমাতে পারিবারিক সচেতনতা জরুরী

image
Fri, December 15
11:13 2017

হাফিজুর রহমান:

ණ☛ বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো কিশোর অপরাধ।কিশোর বয়সীদের দ্বারা সংঘটিত সমাজে বিদ্যমান মূল্যবোধ ও নিয়মনীতি বিরোধী কাজই হলো কিশোর অপরাধ। কিশোর অপরাধের নির্দিষ্ট কোনো বয়স নেই,ভিন্ন ভিন্ন দেশে কিশোর অপরাধের বয়স ভিন্ন ভিন্ন হয়।

ණ☛ বয়সের দিক থেকে সাধারণত ৭ থেকে ১৬ বছর বয়সী কিশোর- কিশোরী দ্বারা সংঘটিত অপরাধই কিশোর অপরাধ। তবে কোনো কোনো দেশে ১৩ থেকে ২২ বছর আবার কোনো দেশে ১৬ থেকে ২১ বছর বয়সী কেউ অপরাধ করলে কিশোর অপরাধী হিসেবে বিবেচিত হয়। জাপানে ১৪ বছরের, ফিলিপাইনে ৯ বছরের এবং ভারত, শ্রীলংকা ও মিয়ানমারে ৭ বছরের কম বয়সী শিশুদের অপরাধ শাস্তিযোগ্য নয়। বাংলাদেশে ১৮ বছরের কেউ অপরাধ করলে কিশোর অপরাধী হিসেবে বিবেচিত হবে। কিশোর অপরাধীদের আচরণ ও কাজকে কম অপরাধমূলক ভাবা হয় ও অপরাধের কারণকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। কৃত অপরাধের জন্য শাস্তিপ্রদান না করে সংশোধনের ব্যবস্থা করা হয়।আধুনিক বিশ্বে শিল্পায়নের পরই এই সমস্যাটি চরম আকার ধারণ করে। কিন্তু এখন এই সমস্যাটি আরোও জটিল হযে যাচ্ছে। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন- তের চৌদ্দ বছরের মতো এমন বালাই আর নেই।

ණ☛ কিশোর অপরাধ প্রধানত পারিবারিক অসচেতনার কারণে হয়ে থাকে। প্রথমে কোনো বাচ্চা যদি চুরি করে তবে ছোট ছেলের অপরাধকে তেমন গুরুত্ব দেয়া হয না আবার ধূমপান করলেও সেটাকে মূখ্য হিসেবে দেখা হয় না তখন থেকেই অপরাধের হাতেখড়ি হয় বাচ্চাটির। অনেক সময় শহরাঞ্জলে ছোট পরিবারগুলোতে বাবা-মা দুজনই সারাদিন কর্মব্যস্ত সময় কাটান ফলে বাচ্চার দিকে তেমন নজর দেয়ার সময পান না তারা এতে করেই অসৎ বন্ধুদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে অপরাধ জগৎ এ পাঁ বাড়ায় বাচ্চারা।

ණ☛ আবার বর্তমান সময়ের চলচিত্র অনেকাংশে বাচ্চাদের অপরাধের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। বাবা-মার পারিবারিক কলহ একইভাবে কিশোর অপরাধকে বাড়াতে সাহায্য করে। কিশোররা সবচেয়ে বেশি জড়িয়ে পড়ছে খুন,ধর্ষণ,ছিনতাই এর মতো বড় বড় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে। কিশোর অপরাধের পেছনে রাজনীতিও কম দায়ি নয়। রাজনীতিতে কিশোরদের ব্যবহার তাদের আরও বেশি দুঃসাহসী করে তুলছে। তারা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে অপরাধ জগতে। নিজেদের ক্ষমতা দেখাতে পাড়ায়/মহল্লায় নিজেদের গ্যাং তৈরি করছে।কিশোর অপরাধের জন্য যে শুধু বস্তি বা নিম্ন শ্রেণির সন্তানরা দায়ি তা নয় এর জন্য ধনী পরিবারের সন্তানরাও দায়ি। অনেক সময় কিশোর সংশোধনাগার সম্পর্কে অজ্ঞ থাকার জন্য অভিভাবকরা তাদের সেখানে দিতে চায় না।

ණ☛ তাই কিশোর অপরাধ কমাতে এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন পারিবারিক সচেনতা। সন্তানকে সময দেযা যেকোনো অপরাধ দেখলে সাথে সাথে তার কারণ অনুসন্ধান করে দ্রুত সে বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহন করা। তবেই সমাজে কিশোর অপরাধ অনেকাংশে কমবে।

হাফিজুর রহমান; লেখক, সংবাদ কর্মী, কলামিস্ট।

লেখাটি ১১২ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৬২২৩২৯৫৪

অনলাইন ভোট

image
রোডম্যাপহীন নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে দেশ- মাহমুদুর রহমান মান্নার এ বক্তব্য যথার্থ বলে মনে করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ২৯ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা