বিনোদন

ঐশ্বরিয়া রাইকে নিয়ে নতুন খবরে তোলপাড় বলিউড

image
Wed, January 3
04:33 2018

নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম:

ණ☛ ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকে নিয়ে নতুন এক খবরে তোলপাড় বলিউড। এই খবরে উঠে এসেছে অবিশ্বাস্য এক তথ্য। অন্ধ্র প্রদেশের এক যুবক দাবি করেছেন, শুধু আরাধ্যাই নয়। ঐশ্বরিয়ার রয়েছে আরও এক সন্তান। আর তিনিই সেই সন্তান। জিনিউজ প্রকাশ করেছে এ খবর। যুবকের নাম সংগীত কুমার। বয়স ২৯। ঐশ্বরিয়া রাই ১৯৯৪ সালে মিস ওয়ার্ল্ড বিজয়ী হয়েছিলেন। তখন তার বয়স ছিল ২১ বছর। সংগীত কুমারের দাবি, মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার ৬ বছর আগেই নাকি বচ্চন বধূর কোলে তিনি জন্ম নেন।

ණ☛ এই যুবকের কথায়, ১৯৮৮ সালে আইভিএফ-এর মাধ্যমে উনি আমার জন্ম দেন। গত ২৭ বছর ধরে আমি আশ্রমে বড় হয়েছি। এক ও দু’বছর বয়সে মুম্বইতে ঠাকুমা কৃষ্ণরাজ রাইয়ের কাছে থাকতাম আমি। ২০১৭-র এপ্রিল মাসে মারা যান ঠাকুমা। আমার কাকার নাম আদিত্য রাই। প্রাক্তন মিস ওয়ার্ল্ডকে শুধু মা দাবি করেই ক্ষান্ত হননি সংগীত কুমার। তার আরও দাবি ঐশ্বর্য এখন অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে থাকেন না। তাই তিনি চান যে ম্যাঙ্গালুরুতে তার সঙ্গে এসে তিনি থাকুন।

ණ☛একটি সংবাদমাধ্যমের কাছে সংগীত বলেন, ২০০৭ সালে অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে আমার মার বিয়ে হয়। কিন্তু এখন মা একা থাকেন। আমি তাই চাই মা আমার সঙ্গে এসে থাকুন। আমি ২৭ বছর ধরে পরিবারের থেকে বিচ্ছিন্ন। আমি মাকে খুব মিস করি। কিন্তু এসব দাবি করলেও, সংগীতের কাছে কোনো প্রামাণ্য নথিপত্র নেই। তিনি জানিয়েছেন, আত্মীয়দের ষড়যন্ত্রের কারণেই ‘মা’ ঐশ্বর্য থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান। তার পরে সঠিক কোনো তথ্য না পাওয়ায় মা-র সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে পারেননি তিনি।

লেখাটি ১৩২ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৬২১৮৫১৯৯

অনলাইন ভোট

image
রোডম্যাপহীন নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে দেশ- মাহমুদুর রহমান মান্নার এ বক্তব্য যথার্থ বলে মনে করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ২৪ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা