বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

৩২ ধারা বা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮

image
Mon, February 5
01:11 2018

ইখতিয়ার উদ্দীন আজাদ।।

ভাবতেছি, সাংবাদিকতার মত মহান পেশা বাদ দিয়ে ঐ ক্যামেরা দিয়ে কোন সামাজিক অনুষ্ঠান কিংবা বিয়ে বাড়িতে ফটো ও ভিডিও ধারণে ব্যস্ত হয়ে যাবো। নয় ত, বিদেশ থেকে তেল আমদানি করে সরকারি, আধা- সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত ও জনপ্রতিনিধিদের মাঝে বাহবাহ দিয়ে তৈল মর্দন করে ফেমাস হয়ে যাবো। কেননা, এর উল্টো কিছু করতে যাবো তো ফেঁসে যাবো। সাংবাদিকদের জন্য তৈরি হচ্ছে, আছৌলা বাঁশ ৩২ ধারা বা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮।


নতুন আইনের ৩২ ধারায় বলা হয়েছে যে, ‘সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে কেউ যদি বেআইনিভাবে প্রবেশ করে কোনও ধরণের তথ্য-উপাত্ত, যেকোনও ধরণের ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রপাতি দিয়ে গোপনে রেকর্ড করে, তাহলে সেটা গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ হবে।’ আইনটিতে এ অপরাধের শাস্তি হিসেবে ১৪ বছরের জেল ও ২০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

# প্রসঙ্গ: একজন সংবাদকর্মীর প্রধান কাজ হচ্ছে সমাজের অসঙ্গতি, দেশ বিরোধী কর্মকাণ্ড, দুর্নীতি, অনিয়ম, আত্মসাৎ ও অসহায় মানুষের পক্ষ হয়ে জনসম্মুখে তা প্রকাশ করা। আর এর জন্য প্রয়োজন উপযুক্ত প্রমাণাদি। যা সংগ্রহ করতে একজন সাংবাদিককে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করতে হয়। কিন্তু নতুন এই আইন প্রণোয়নে জাতির কাছে আমার প্রশ্ন (?)

" একজন সাংবাদিক কি তার সঠিক কাজটি করতে পারবে...???"

লেখক: ইখতিয়ার উদ্দীন আজাদ
সাংবাদিক ও কলামিস্ট,
পত্নীতলা, নওগাঁ।

লেখাটি ৩০২ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৮৬৮০৬১৪

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ১১২ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা
Changer.com - Instant Exchanger