আন্তর্জাতিক

কিমের সঙ্গে বৈঠকে বসতে রাজি ট্রাম্প

image
Sat, March 10
04:32 2018

নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম।।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকে বসতে রাজি হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। সম্প্রতি ট্রাম্পকে সাক্ষাতের প্রস্তাব জানান কিম।

সবাইকে অবাক করে দিয়ে তার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ট্রাম্প জানান, যত দ্রুত সম্ভব উত্তর কোরিয়ার নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন তিনি। ওয়াশিংটনে অবস্থানরত দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা ট্রাম্পকে কিমের নিমন্ত্রণ পত্র হস্তান্তর করেন।
তারা জানান, কিম পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কার্যক্রম বন্ধ করতে রাজি হয়েছেন। এমনকি পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণেও রাজি উত্তর কোরিয়া।

উল্লেখ্য, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কার্যক্রম নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে দুই পক্ষের মধ্যে চলমান হুমকি ও সহিংসতার পর এমন পদক্ষেপকে পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নতি হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। তবে তারা এই আলোচনার অর্জন কি হবে সে বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। কেননা, পরিস্থিতি এরকম মোড় নেয়ার পেছনে বহু বছরের কূটনীতির অবদান রয়েছে। ট্রাম্প বিষয়টিকে ‘ব্যাপক উন্নতি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

তবে যতক্ষণ না দুই পক্ষ কোনো সমঝোতায় পৌঁছাচ্ছে ততক্ষণ উত্তর কোরিয়ার ওপর থেকে কোনো নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, সাক্ষাতের বিষয়ে উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিশ্রুতি পাওয়া যায়নি। দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা চাং ইয়ুই-ইয়ং ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করার পর বলেন, আমি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে বলেছি যে, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার সময় তিনি আমাদের কাছে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের প্রতিশ্রুতি করেছেন।

তিনি আরো বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আমাদের সাক্ষাতের বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবে নিয়েছেন ও জানিয়েছেন, চূড়ান্ত পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ নিশ্চিত করতে মে মাসের মধ্যে কিম জং উনের সঙ্গে দেখা করবেন। উল্লেখ্য, যদি এই সাক্ষাৎ সম্পন্ন হয়, তাহলে এটাই হবে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ দুই নেতার মধ্যে প্রথম কোনো সাক্ষাৎ। এর আগে কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও উত্তর কোরিয়ার কোনো নেতার মধ্যে এরকম সাক্ষাতের ঘটনা ঘটেনি। মানবাধিকার লঙ্ঘন ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কারণে কয়েক দশক ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে উত্তর কোরিয়া। দেশটির দাবি, তাদের নিরাপত্তা হুমকিতে রয়েছে। আর এজন্য তাদের পারমাণবিক অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র প্রয়োজন। এখন পর্যন্ত দেশটি মোট ৬টি পারমাণবিক পরীক্ষা চালিয়েছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পারমাণবিক ক্ষমতাসম্পন্ন হওয়ার দিকে বেশ জোর দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। যার দরুন দেশটির ওপর এসেছে একের পর নিষেধাজ্ঞা ও অবরোধ। তবে কয়েকদিন আগে শেষ হওয়া শীতকালীন অলিম্পিকের মধ্য দিয়ে কিছুটা নরম মনোভাব প্রকাশ করেছেন কিম জং উন। অলিম্পিকে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে একই পতাকা নিয়ে অংশ নিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এই সপ্তাহে তিনি ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ কোরিয়ার কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

ওই বৈঠকেই ট্রাম্পের সঙ্গে আলোচনায় বসতে সম্মতি প্রকাশ করেন তিনি। সবমিলিয়ে উত্তর কোরিয়া চারটি বিষয়ে রাজি হয়েছে- যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা; পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে রাজি হওয়া; পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কার্যক্রম বন্ধ করা এবং যুক্তরাষ্ট্র-দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক অনুশীলন মেনে নেয়া।

লেখাটি ১২২ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৩১৬৮৫১৯

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৫১ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা