খেলাধুলা

স্মিথকে আজীবন নিষিদ্ধ করতে পারে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ড

image
Mon, March 26
03:58 2018

বল বিকৃতির ঘটনায় নেতৃত্ব দিয়ে ক্রিকেট দুনিয়ায় ঝড় তুলেছেন অস্ট্রেলীয় অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। অধিনায়কত্ব থেকে সরে যেতে হয়েছে। আইসিসিও তাঁকে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ করেছে। কিন্তু ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া তাঁকে এত সহজে ছেড়ে দেবে বলে মনে হচ্ছে না। আজীবন নিষিদ্ধ হতে পারেন বর্তমান ক্রিকেটের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান।

ইএসপিএন–ক্রিকইনফো জানিয়েছে, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার আচরণবিধি অনুযায়ী স্মিথকে অাজীবন নিষিদ্ধ করা হতে পারে। নিষিদ্ধ করা হতে পারে সহ–অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকেও।

অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ডের নৈতিকতা বিভাগের প্রধান লেইন রয় ও দলের পারফরম্যান্স ম্যানেজার প্যাট হাওয়ার্ডকে ইতিমধ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকায় পাঠানো হয়েছে। সেখানে পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখবেন তাঁরা। কথা বলবেন অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফটের সঙ্গে।

এরপর শুনানি শেষে তাঁরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন। সে সময়ই নির্ধারিত হবে কতটা গুরুতর শাস্তি পাবেন স্মিথ, ব্যানক্রফট ও ওয়ার্নাররা।

কেপটাউন টেস্টের তৃতীয় দিন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের বল বিকৃতির ঘটনা ধরা পড়ে টেলিভিশন ক্যামেরায়। ফুটেজে দেখা যায়, ব্যানক্রফট হলুদ রঙের কিছু দিয়ে বল ঘষছেন। পরে সেটি ট্রাউজারের পকেটে রাখার সময়ই ধরা পড়ে যান তিনি।

টেলিভিশন আম্পায়ার ইয়ান গোল্ড ফুটেজ দেখে মাঠের আম্পায়ারদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেন। আম্পায়াররা ব্যানক্রফটকে চ্যালেঞ্জ করেন। ক্রিকেট ইতিহাসে বল বিকৃতির যেসব ঘটনা ঘটেছে, অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের এই ঘটনা খুব সম্ভবত ছাপিয়ে গেছে অতীতের সব ঘটনাকেই।

লেখাটি ১৬৬ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৫১০০৮৭৪

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৭৯ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা