রাজনীতি

অর্থ আত্মসাতের মামলায় জামায়াতের সাবেক আমির ইউনুস আলী গ্রেফতার

image
Sat, April 14
02:25 2018

লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

প্রতারণা ও কলেজ উন্নয়নের নামে টাকা আত্মসাতের মামলায় হাতীবান্ধা মডেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও উপজেলা জামায়াতের সাবেক আমির ও মোঃ ইউনুস আলীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৩ এপ্রিল) দুপুর ২টায় হাতীবান্ধা বন্দর বাসস্টান্ড থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আটক ইউনুস বর্তমানে হাতীবান্ধা আলিমুদ্দিন ডিগ্রী কলেজের গণিত বিভাগের বিভাগীয় প্রধান পদে কর্মরত আছেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, অধ্যক্ষ ইউনুছ আলী ২২ জন প্রভাষকের কাছ থেকে কলেজ উন্নয়নের নামে বিভিন্ন সময় ৩৪ লাখ ৭ হাজার টাকা নিয়েছেন। কিন্তু কলেজ উন্নয়নে কোনো কাজ করেননি। পরে অধ্যক্ষ ইউনুস আলীর নামে ২০১৫ সালে প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ এনে ২২ জন শিক্ষকের পক্ষে হাতীবান্ধা থানায় মামলা করেন উপজেলার কাউন্সিলপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে ও মডেল কলেজের প্রভাষক হামিদুল ইসলাম।

মামলাটি পরবর্তীতে দুনীর্তি দমন কমিশন (দুদক) তদন্ত করে ইউনুস আলীর নামে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করে। ওই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করলে শুক্রবার হাতীবান্ধা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ আসামী ইউনুস আলীকে গ্রেফতার করেন।

মামলার বাদী প্রভাষক হামিদুল আলম বলেন, ২০১৫ সালে আমি ২২জন শিক্ষকের পক্ষে অধ্যক্ষ ইউনুছ আলীর নামে প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের মামলা করি। পরবর্তিতে তিনি আমার টাকা ফিরে দিলেও বাকি ২১ জনের টাকা ফিরত দেননি। বিধায় সেই মামলাটি রয়েই গেছে।

এ ব্যাপারে হাতীবান্ধা থানা অফিসার ইনচার্জ ওমর ফারুক জামায়াত নেতা ইউনুস আলীকে গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাকে গ্রেফতারের পর লালমনিরহাট জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

লেখাটি ১৬৪ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৭৪৮৪৪৫০৪

অনলাইন ভোট

image
মাদক বিরোধী অভিযানের নামে অব্যাহত ক্রসফায়ার সমর্থন করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৭৮ জন

আজকের উক্তি

নির্বাচনকালীন সরকার কিংবা সহায়ক সরকার বিষয়টি রাজনৈতিক, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই: প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা