রাজনীতি

নতুন সিলেট’ কোনো অলীক স্বপ্ন নয়; ২য় মেয়াদে নির্বাচিত হলে তরুণদের নিয়ে ‘ড্রিম টিম’ গঠনের ঘোষণা আরিফের, ভিডিও সহ

image
Fri, July 27
02:01 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নতুন সিলেট’ কোনো অলীক স্বপ্ন নয়, দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হলে তরুণদের নিয়ে ‘ড্রিম টিম’ গঠন করার ঘোষণা দিয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। ইশতেহারে ‘নতুন সিলেট’ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন এই বিএনপি নেতা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নগরীর কাজীটুলাস্থ প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে ইশতেহার ঘোষণা করেন আরিফ।

লিখিত ইশেতহার ঘোষণার আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ‘স্বল্প ও মধ্যমেয়াদি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন অনেকটা সহজ হলেও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন অনেক কিছুর উপর নির্ভরশীল। অথচ আগামীর সিলেট কিংবা আজ থকে ৩০ কিংবা ৫০ বছর পর আমরা কিভাবে সিলেট নগরীকে দেখতে চাই, তার চিন্তাভাবনা শুরু করা জরুরি। দৈনন্দিন নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার পাশাপাশি সিলেট সিটি করপোরেশনকে সম্প্রসারণ করে আগামী প্রজন্মের সিলেট গড়ার ক্ষেত্রেও আমাদের মনোযোগি হতে হবে।’

আরিফ বলেন, ‘‘সবাই মিলে পরিকল্পনামাফিক কাজ করলেও ‘নতুন সিলেট’ গড়া খুবই সম্ভব। এই ‘নতুন সিলেট’ হবে পরিচ্ছন্ন, থাকবে না কোনো যানজট। ‘নতুন সিলেটে’ থাকবে মেট্রোরেল কিংবা টিউব (আন্ডারগ্রাউন্ড রেল)। থাকবে না তারের জঞ্জাল, তার যাবে আন্ডারগ্রাউন্ড দিয়ে। ‘নতুন সিলেটে’ থাকবে খোলা উদ্যান, বহুতল বিশিষ্ট কার পার্কিং ভবন, মার্কেটে মার্কেটে হেঁটে হেঁটে শপিং করবেন নাগরিকরা, পাশাপাশি থাকবেন বিদেশি পর্যটকরা।’

বিএনপি নেতা আরিফ বলেন, ‘‘নতুন সিলেটে’ থাকবে ‘সিলেট টাওয়ার’। এই উঁচুতম স্থানকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হবে অন্যরকম এক আবহ। যেখানে উপস্থাপিত হবে সিলেটের ঐতিহ্য আর সংস্কৃতি। সিলেট টাওয়ারের উপর দাঁড়িয়ে পর্যটকরা শুধু সিলেটের উঁচু-নিচু টিলা আর সবুজ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখেই মুগ্ধ হবেন না, তাদের জন্য সেখানেই থাকবে এক টকুরো মিনি সিলেট।’’

সদ্য সাবেক মেয়র বলেন, ‘‘নতুন সিলেট’ কোনো অলীক স্বপ্ন নয়। এই ‘নতুন সিলেট’ গড়ার জন্য প্রয়োজন সঠিক সুন্দর পরিকল্পনা, সরকারের সদিচ্ছা, সবার আন্তরিকতা ও ত্যাগের মানসিকতা। প্রয়োজন একটি ‘ড্রিম টিম’। যে টিম থাকবে লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে। বাধা আসবে, তারপরও এই ড্রিম টিম ইস্পাত কঠিন মনোভাব নিয়ে কাজ করবে।’

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য আরিফ বলেন, ‘ঢাকা কিংবা চট্টগ্রাম জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে আজও মুক্ত হতে পারেনি। কিন্তুমাত্র ৫ বছরেই জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে প্রায় মুক্ত সিলেট নগরী। আজ থেকে প্রায় ৫ বছর আগে এই নগরীর মানুষের কাছেও জলাবদ্ধতা এক দুঃস্বপ্নের মতো ছিল। আমি দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে এই সমস্যা সমাধানে অগ্রাধিকারভিত্তিতে কাজ শুরু করি। নগরীর মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হওয়া ৯টি প্রধান ছড়া এবং বন্ধ হয়ে যাওয়া সবগুলো খালের পানির প্রবাহ নিশ্চিত করার জন্য খাল দখলমুক্তকরণ, খনন এবং নাগরিক বিনোদনের কেন্দ্র হিসেবে খালগুলি সৌন্দর্যবর্ধন করে ব্যবহার উপযোগী করা হয়েছে, কিছু কাজ এখনও চলমান। প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডে ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নত করে সকল ড্রেনগু সচল রাখা গেছে। যার সুবিধা এই নগরীর প্রতিটি মানুষ এখন জলাবদ্ধতা নামক অভিশাপ থেকে প্রায় মুক্ত।’
‘আগামীতেও ছড়া ও খাল উদ্ধার কর্মসূচী অব্যাহত রাখার পাশাপাশি শতভাগ জলাবদ্ধতামুক্ত নগরী করার স্বার্থে সুরমা নদীকে খনন করার সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা গ্রহণ করবেন’ উল্লেখ করে বিএনপির মেয়র প্রার্থী বলেন, ‘সুরমা নদী ভরাট হওয়ার কারণে নদীর পানি যখন বেড়ে যায় তখন ছড়া ও খালের পানি নদীতে গিয়ে মিশতে পারে না, তখন নদী সংলগ্ন কয়েকটি এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এই সমস্যা উত্তরণের জন্য নদী খনন জরুরী।’

তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে সিলেট নগরীকে এগিয়ে নিতে চান আরিফ। তিনি বলেন, ‘‘সিলেট নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে পরীক্ষামূলকভাবে ওয়াইফাই চালুর কাজ শুরু করা হয়েছে। এক্ষেত্রে দেশের অন্যতম বৃহৎ ইন্টারনেট প্রোভাইডার কোম্পানির সাথে আলোচনা চূড়ান্ত হয়েছে। আমি দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হলে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করা হবে। নগরীর প্রাণকেন্দ্রে ‘তথ্য প্রযুক্তি ভবন’ গড়ে তোলার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।’’

আরিফুল হক চৌধুরী আরও বলেন, ‘যানজট নিরসনের জন্য সম্মিলিত প্রয়াস গ্রহণ এবং এই মহানগরীর উপযোগী নিত্য নতুন ব্যবস্থা চালু করা (টাউন বাস), প্রাইভেট গাড়ির আধিক্য কমানোর লক্ষ্যে স্কুলভিত্তিক বাস চালুর পাশাপাশি রাস্তা প্রশস্তকরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। ট্রাক টার্মিনাল চালু করা এবং কদমতলী বাস টার্মিনালকে আন্তর্জাতিক মানে রূপান্তরিত করার কাজ বাস্তবায়ন করা করা হবে। এছাড়া হকারদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে অপরিকল্পিতভাবে নির্মিত ঝুঁকিপূর্ণ পুরনো লালদিঘী মার্কেটকে ভেঙে ফেলা হয়েছে। এখানে নতুন সুপরিসর মার্কেট তৈরী করে হকারদের পুনর্বাসন করা হবে। ইতোমধ্যে হকারদের তালিকাও করা হয়েছে। এতে করে তাদের একটি স্থায়ী ঠিকানা হবে। তারাও পরিবার পরিজন নিয়ে নির্বিঘ্নে ব্যবসা করে অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। এছাড়াও এই মার্কেটে ইতোমধ্যে যারা বরাদ্দ নিয়েছেন তাদেরও জায়গা দেওয়া হবে।’

ইশতেহার ঘোষণাকালে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম, সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

লেখাটি ৮২৯ বার পড়া হয়েছে
নিউজ অর্গান টোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Video




Share


Related Articles

Comments

ফেসবুক/টুইটার থেকে সরাসরি প্রকাশিত মন্তব্য পাঠকের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত মতামতের প্রতিফলন, এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোট ভিসিটর সংখ্যা
৮০০২৪৩০৯

অনলাইন ভোট

image
যেভাবে মারামারি ধরাধরি শুরু হয়েছে বোঝা যাচ্ছে নির্বাচন সমতল ভূমিতে হবে না- সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হাফিজ উদ্দিন খানের এ বক্তব্য সঠিক মনে করেন কি?

আপনার মতামত
হ্যাঁ
না
ভোট দিয়েছেন ৪ জন

আজকের উক্তি

ড. কামাল, সুলতান মনসুর, কাদের সিদ্দিকী, মান্নার এত আবেগ দিয়ে জ্ঞানগর্ভ লেখা, এত বিবেক! কোথায় গেল সেই বিবেক?: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
Changer.com - Instant Exchanger