নেপালের সীমান্তরক্ষীর গুলিতে ভারতীয় নিহত

ভারত-নেপাল সীমান্তে নেপালি পুলিশের গুলিতে এক ভারতীয় নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হন দুজন। আটক করা হয় এক ভারতীয়কে। শুক্রবার সকালে ভারতের বিহার রাজ্যের সীতামারি জেলার সীমান্তে এই ঘটনা ঘটে।

এমন সময় এই সীমান্ত হত্যাকাণ্ড ঘটল, যখন সীমানা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

নেপালের সীমান্তরক্ষী বাহিনী ‘নেপালিজ আর্মড পুলিশ ফোর্স’ বলছে, কয়েজন ভারতীয় সীমান্ত অতিক্রম করে নেপালে ঢোকার চেষ্টা করেন। কিন্তু করোনাভাইরাস বিস্তাররোধে লকডাউন থাকায় তাদের নেপালে ঢুকতে বারণ করা হয়। এতে ওই ব্যক্তিদের সঙ্গে ২৫–৩০ জন ভারতীয় যুক্ত হয়ে নেপালি পুলিশের ওপর চড়াও হয়। একপর্যায়ে নেপালের পুলিশ গুলি ছোড়ে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়,নিহত যুবকের নাম বিকাশ যাদব (২২)। আহত দুজনের নাম উমেশ রাম ও উদয় ঠাকুর। তাঁদের সীতামারীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হতাহতদের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন, ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী স্থানীয় এক কর্মকর্তা। তিনি জানান, ওই ঘটনায় লগন যাদব নামে এক ভারতীয়কে নেপালি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

খবরে বলা হয়, ভারত–নেপালের যে সীমান্তে এই ঘটনা ঘটেছে, সেখানে কাঁটাতারের বেড়া নেই। সীমান্তটি উন্মুক্ত। এতে সহজেই এক দেশের মানুষ আরেক দেশে যেতে পারে। পাশাপাশি হওয়ায় এপার-ওপার আত্মীয়স্বজন রয়েছে অনেকের।

নেপাল সীমান্তরক্ষী পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক নারায়ণ বাবু থাপা ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআইকে বলেন, ঘটনাটি দক্ষিণ নেপালের সরলাহি জেলায় শূন্য রেখা থেকে নেপালের ৭৫ মিটার অভ্যন্তরে ঘটে। তাঁর দাবি, ২৫-৩০ জন ভারতীয় নেপালি পুলিশ সদস্যের ওপর চড়াও হয়। তারা তাদের লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ে। পুলিশ ১০ রাউন্ডের মতো ফাঁকা গুলি ছুড়ে। এতে হতাহতের ওই ঘটনা ঘটে। নেপাল পুলিশ আরও দাবি করে, উত্তেজিত ভারতীয়রা তাদের অস্ত্র কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর পাটনা ফ্রন্টিয়ারের আইজি সঞ্জয় কুমার বলেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে নেপাল পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। পরিস্থিতি আপাতত নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’ স্থানীয় এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, শনিবার সকালে দুই দেশের সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে এ বিষয়ে পতাকা বৈঠক হবে।

সম্প্রতি সীমানা নিয়ে ভারত ও নেপালের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। ভারতের দাবি করা তিনটি এলাকা নিজেদের দাবি করে মানচিত্র প্রকাশ করেছে নেপাল। ধারণা করা হচ্ছে, এ জন্যই নিজেদের দেশে ভারতীয়দের প্রবেশে বাধা দেয় নেপালের সীমান্তরক্ষীরা। যদিও নেপাল সীমান্তরক্ষীদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, করোনোভাইরাস মহামারিতে লকডাউনের অবস্থা থাকায় ওই ভারতীয়দের প্রবেশে নিরুৎসাহিত করা হয়েছিল।

Add your comment:

Related posts